প্রতিষ্ঠিত এক সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারের নিজের চাকরি ছেড়ে, ভারতবর্ষের প্রখ্যাত ব্লগার হয়ে ওঠার গল্প...

Tripoto

উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ হিমালয়ের সঙ্গে পেশায় সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার মেধাবী দাভেদা-র যখন সাক্ষাৎ হয়, তখন তাঁর বয়স মাত্র ১৬ বছর। প্রথম দর্শনেই এই পর্বতশৃঙ্গ তাঁর জীবনে উচ্চতার প্রতি ভালবাসা সৃষ্টি করে। উক্ত অভিজ্ঞতার পর থেকেই তিনি নিজের সমস্ত পিছুটান কাটিয়ে এগিয়ে চলেন উচ্চতার শীর্ষে । শুধুমাত্র তাই নয়, বিভিন্ন সফটওয়্যার কোম্পানি যেমন টিসিএস, ইনফোসিস, আইবিএম-এর খ্যাতনামা চাকরিতে ইস্তফা দিয়ে নিজের প্রয়োজনীয় সামগ্রী গুছিয়ে নিয়ে, তিনি একাকী বেড়িয়ে পরেন সেই উচ্চতার খোঁজে। পরবর্তীতে তিনি নিজেকে একজন দক্ষ ও দুঃসাহসিক স্কুবা ড্রাইভার হিসেবে জনসমক্ষে পরিচিতি করান এবং নিজের এই কর্মের প্রমাণ স্বরূপ শংসাপত্রে ভূষিত হন। এরপর লাক্ষাদ্বীপ, হ্যাভলক আইল্যান্ড, গিলি ট্রায়াঙ্গান, ভিয়েতনাম এবং কম্বোডিয়া-র প্রভৃতি জায়গার জলজ জীবন অন্বেষণে নিযুক্ত হন।

Photo of প্রতিষ্ঠিত এক সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারের নিজের চাকরি ছেড়ে, ভারতবর্ষের প্রখ্যাত ব্লগার হয়ে ওঠার গল্প... 1/4 by Deya Das
নিজের ইচ্ছাকেই বরাবর প্রাধান্য দিয়েছে মেধাবী (ছবি সংগৃহীত)

ট্রেকিং-এর আনন্দে উৎসাহিত হয়ে তিনি তুষারে ঢাকা পর্বতগুলি দেখার জন্য এবং সেই ভূখণ্ডগুলিকে অতিক্রম করতে বারবার বিভিন্ন অজুহাত খুঁজে নিয়েছেন ।মেধাবী ট্রেকিং-এর জন্য বিভিন্ন জায়গায় ভ্রমণ করলেও তারমধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য হল- রূপকুণ্ড ট্রেক, চাদার ট্রেক, কাশ্মীর গ্রেট লাকেস ট্রেক। এছাড়াও কিছু ট্রেক যেমন মারখা ভ্যালি, স্টক কাংড়ি, অডেন'স কল, কালিন্দি খাল, গারুদা পিক এবং এভারেস্ট বেস ক্যাম্প ট্রেক-এ তিনি একক অভিযান করেছেন। প্রকৃতির এতটা কাছাকাছি পৌঁছে যাওয়ার জন্য তিনি জীবনকে এক নতুন দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে দেখতে শুরু করেন। এর ফলে তাঁর বাহ্যিক মোহ, আধুনিক বস্তুবাদ থেকে হতাশা সৃষ্টি হতে শুরু করে এবং তৈরি হয় প্রাকৃতিক সম্পদের প্রতি প্রবল আকর্ষণ।

Photo of প্রতিষ্ঠিত এক সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারের নিজের চাকরি ছেড়ে, ভারতবর্ষের প্রখ্যাত ব্লগার হয়ে ওঠার গল্প... 2/4 by Deya Das
প্রকৃতির প্রতি অমোঘ টান বরাবরই রয়েছে তাঁর (ছবি সংগৃহীত)

২০১৫ সালে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে আন্দামান দ্বীপে ঘুরে আসার পর তিনি তাঁর চাকরি জীবনের অবসান ঘটিয়ে পাঁচ সপ্তাহের জন্য জিনিসপত্র গুছিয়ে নিয়ে চলে গিয়েছিলেন ভিয়েতনাম,লাওস এবং কম্বোডিয়াতে স্কুবা ড্রাইভিং-এর দুঃসাহসিক অভিজ্ঞতা অর্জন করতে।

Photo of প্রতিষ্ঠিত এক সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারের নিজের চাকরি ছেড়ে, ভারতবর্ষের প্রখ্যাত ব্লগার হয়ে ওঠার গল্প... 3/4 by Deya Das
স্কুবা ড্রাইভিং-এ ধীরে ধীরে পারদর্শী হয়ে ওঠে মেধাবী (ছবি সংগৃহীত)

ফিরে এসে তিনি তাঁর সম্পত্তির বেশিরভাগটাই দান করে দিয়ে পুনরায় চলে যান প্রকৃতির শোভাবর্ধনকারী হিমালয় পর্বতে। তাঁর প্রথম গন্তব্য ছিল বীর; সেখানে তিনি তিন মাস অতিবাহিত করেন, এরপর আবার জিনিসপত্র গুছিয়ে নিয়ে রওনা হন স্পিতি এবং কিন্নুর, যেখানে তিনি কয়েক মাস কাটান এবং তারপর পরবর্তী ছয় মাস তীর্থন ভ্যালি-তে থাকেন।

Photo of প্রতিষ্ঠিত এক সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারের নিজের চাকরি ছেড়ে, ভারতবর্ষের প্রখ্যাত ব্লগার হয়ে ওঠার গল্প... 4/4 by Deya Das
প্রকৃতির কাছাকাছি থাকতেই বেশি পছন্দ করেন তিনি

সময়ের অভাবে যাদের জীবনে ছন্দপতন ঘটেছে, যারা সারা পৃথিবীর ভ্রমণ অভিজ্ঞতা অর্জন করার সুযোগ পাচ্ছিলেন না, তাদের জন্য অনুপ্রেরণার অন্যতম নাম মেধাবী।তিনি তাঁর অভিজ্ঞতার কিছুটা অংশ ভাগ করার মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠা এবং বহু মানুষকে উৎসাহিত করেছেন। ২০১৭ সাল থেকে তিনি TEDxGCET-এর বক্তা পদে নিযুক্ত রয়েছেন, যেখানে তিনি নিজের শিরোনামে বলেছেন - “Solo travelling – Follow your dreams”.

সব চিত্রগুলো মেধাবীর সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।

নিজের বেড়ানোর অভিজ্ঞতা ট্রিপোটোর সঙ্গে ভাগ করে নিন আর সারা বিশ্ব জুড়ে অসংখ্য পর্যটকদের অনুপ্রাণিত করুন।

বিনামূল্যে বেড়াতে যেতে চান? ক্রেডিট জমা করুন আর ট্রিপোটোর হোটেল স্টে আর ভেকেশন প্যাকেজে সেগুলো ব্যাবহার করুন।

(এটি একটি অনুবাদকৃত/অনুলিখিত আর্টিকেল। আসল আর্টিকেল পড়তে এখানে ক্লিক করুন!)

Tagged:
#video