ইংলিশ ব্রেকফাস্টকে না করুন, একটা দিন ব্রেকফাস্ট সারতে পারেন কলকাতার সেরা এই দোকানগুলো থেকে...

Tripoto

বাঙালির খাদ্যরসিকতা এবং ভোজনরসিকতা নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। বাঙালি আড্ডাপ্রেমীর পাশাপাশি ভোজনপ্রেমীও বটে। গলির মোড়ে চা-এর ঠেকে তর্ক-যুদ্ধে বাঙালির সঙ্গে তাল মেলানো কিন্তু ভারি মুশকিল... বাঙালি এক্ষেত্রে এক্কেবারে সিদ্ধহস্ত এমনটা বলা যেতেই পারে। সকালে বাজারের থলি হাতে বাজার যাওয়ার ফাঁকে পাড়ার মোড়ে চা-এর দোকান থেকে এক কাপ গরম চা আর তার সঙ্গে গরম-গরম কচুরি আর জিলিপি খেতে কে না ভালবাসে? কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়ার শত সহস্র ভয় থাকলেও বাঙালিকে এই কাজ থেকে কেউ টলাতে পারবে না।

Photo of ইংলিশ ব্রেকফাস্টকে না করুন, একটা দিন ব্রেকফাস্ট সারতে পারেন কলকাতার সেরা এই দোকানগুলো থেকে... 1/1 by Never ending footsteps
কচুরির নানা স্বাদ (ছবি সংগৃহীত)

ভোজনপ্রেমী বাঙালির মনকে সন্তুষ্ট করতে কলকাতার প্রায় প্রতিটি পাড়ার মিষ্টির দোকানে সাত সকালেই চোখে পড়ে কুচুরিপ্রেমী মানুষদের জমায়েত। বলাবাহুল্য, বাঙালিকে ইংলিশ ব্রেকফাস্টের লোভে সম্মোহিত করাটা বেশ কঠিন বিষয়, তবে কুচুরির লোভে তাকে বশে আনার চেষ্টা করা যেতেই পারে।

উনুনের ধোঁয়া এবং কুয়াশা ঘেরা সকালের কলকাতার বুকে এমনই চোখে পড়বে বিভিন্ন মিষ্টির দোকান আর তার থেকে বাছাই করা কয়েকটি দোকানের হদিশ রইল আপনাদের জন্য।

শর্মা টি হাউজ

ভবানীপুরের আশেপাশে যাঁদের বাড়ি, তাঁরা প্রত্যেকেই শর্মা টি হাউজ নামের সঙ্গে সুরিচিত। ভবানীপুর মোড়ের এই দোকানটিতে আপনি পাবেন সুস্বাদু কচুরি এবং আলুর তরকারি। এখানে প্রতিটি কচুরির দাম ১০ টাকা।

পুঁটিরাম সুইটস

কলেজস্ট্রিট আর বইপাড়ায় ঘোরাঘুরি করছেন অথচ পুটিরামের কচুরি চেখে দেখেননি এমনটা কি হতে পারে নাকি? বহু বছরের প্রসিদ্ধ এই মিষ্টির দোকানে আপনি পাবেন জিভে জল আনা সুস্বাদু কচুরি এবং তরকারি। বিভিন্ন মিষ্টিও আপনি চেখে দেখতে পারেন।

শ্রীহরি মিষ্টান্ন ভাণ্ডার

কলকাতা বলেই বোধহয় এমনটা হতে পারে। কলকাতার বুকে প্রায় একশো বছরের পুরনো এই মিষ্টির দোকানে আপনি পাবেন জিভে জল আনা কচুরি এবং তরকারি। এখানে প্রতিটি কচুরির দাম প্রায় ছয় টাকা করে।

মহারানি

দেশপ্রিয় পার্কের কাছে মহারানি বিশেষভাবে জনপ্রিয়। গরম গরম চা-সিঙ্গারার সঙ্গে পেয়ে যাবেন কচুরি এবং গরম গরম তরকারি।

অরুণ টি স্টল

সকালবেলাতে মনিং ওয়ার্কের নাম করে একবার ঢুঁ মেরে আসতে পারেন থিয়েটার রোডের অরুণ টি স্টল থেকে। ব্রেকফাস্টও সেরে নিতে পারেন এখান থেকে। এক প্লেট ক্লাব কচুরির দাম তিরিশ টাকা, আর হিং-এর কচুরি পাবেন এক প্লেট চল্লিশ টাকাতে।

টেস্টি কর্ণার

দক্ষিণ কলকাতাবাসীর কাছে টেস্টি কর্ণারের কচুরি বিশেষভাবেই প্রসিদ্ধ। হিং, পনির এবং মটর কচুরির স্বাদ সত্যিই আপনার মন জয় করে নিতে বাধ্য। মোটামুটি চল্লিশ টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবে সুস্বাদু কচুরি।

তাহলে কোনও কোনও দিন হেলদি ডায়েটের পাশাপাশি, ডায়েটে একটুখানি কাট-ছাট করে এসব ট্রাই করবেন নাকি?

নিজের বেড়ানোর অভিজ্ঞতা ট্রিপোটোর সঙ্গে ভাগ করে নিন আর সারা বিশ্ব জুড়ে অসংখ্য পর্যটকদের অনুপ্রাণিত করুন।

বিনামূল্যে বেড়াতে যেতে চান? ক্রেডিট জমা করুন আর ট্রিপোটোর হোটেল স্টে আর ভেকেশন প্যাকেজে সেগুলো ব্যবহার করুন।